1. admin@kalomkantho.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০২:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আটঘরিয়ায় ইউপি নির্বাচনে নৌকাপ্রত্যাশী প্রবীণ রাজনীতিবিদ মহসিন মোল্লা ঝিকরগাছা উপজেলায় নৌকা পেল যারা শেখ রাসেলের জন্মদিনে ঢাকা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের নানা কর্মসূচি ঝিকরগাছায় ৭৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু ঝিকরগাছা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম রেজা সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ঝিকরগাছার গরিবের ডাক্তার হাবিবুরের মৃত্যু, সাবেক এমপি মনিরের শোক ঝিকরগাছা থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত ঝিকরগাছায় আ. লীগ নেতার মৃত্যু, স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহ্বায়ক কালামের শোক যশোরে চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা গ্রেফতার যুবলীগ থেকে ব্যারিস্টার সুমনকে অব্যাহতি

করোনা আতঙ্কের মধ্যেও সুখবর ছিলো যশোর চিকিৎসাসেবায়

  • আপডেট টাইম শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৬০ ভিউ টাইম

কলমকণ্ঠ ডেস্ক

২০২০ সালে যশোরের চিকিৎসা বিভাগে বেশিরভাগ সময় কেটেছে করোনাভাইরাস আতঙ্কে। এই আতঙ্কের মাঝেও ছিল সুখবর।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে উন্নতমানের ১২৮ স্লাইসের সিটিস্ক্যান মেশিন চালু হয়েছে। আবার অনুমোদন মিলেছে ইন্টেন্সিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) ভেন্টিলেটর সুবিধার। যার মধ্যে দিয়েই যশোরবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি পূরণ হয়। সুখবরের মধ্যেও চিকিৎসকের মৃত্যু চিকিৎসাসেবায় বয়ে আনে ঘোর অনামিশা। করোনাভাইরাস কেড়ে নেয় হাসপাতালের রেডিওলজিস্ট বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সাজ্জাদ কামালকে। করোনায় আক্রান্ত ছিলেন যশোর স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন কর্মকর্তারা। চিকিৎসক, সেবিকা ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেশির ভাগ সময় কেটেছে করোনা আতঙ্কের মধ্য দিয়ে। আতঙ্কের কারণে চিকিৎসকরা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। এমনকি প্রাইভেট চেম্বারে রোগীর চিকিৎসাসেবা বন্ধ রেখেছিলেন টানা ১ মাসেরও বেশি সময়। অন্যদিকে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে নানা অনিয়মের কারণে একাধিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান বন্ধের রেকর্ড গড়েছেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, যশোরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ১২ এপ্রিল। তিনি ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন স্বাস্থ্যকর্মী। এরপর বাড়তে থাকে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। তবে ১৭ মার্চ চালু করা হয় করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীদের চিকিৎসার জন্য আইসোলেশন ওয়ার্ড। গত ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৭৩ জন। করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৬৯ জন। এদের নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। অর্থাৎ তারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। আর ৪৬ জনের শরীরে করোনার অস্তিত্ব মেলেনি। করোনা রোগীদের চিকিৎসার সুবিধার্থে মে মাসে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ১০ শয্যার আইসিইউ ওয়ার্ড করার জন্য ১০ টি ভেন্টিলেটর চেয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠায় কর্তৃপক্ষ। জুন মাসে মন্ত্রণালয় ৬ টি ভেন্টিলেটর বরাদ্দ পায়। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে ৬টি ভেন্টিলেটর হাসপাতালে এসে পৌঁছায়। এরপর ডিসেম্বর মাসে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সেন্ট্রাল মেডিকেল সেন্টার ডিপো (সিএমএসডি) মঙ্গলবার ৫ টি বেড (শয্যা), ২৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ৩ টি হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা (এইচএফএনসি) বরাদ্দ পায়। এরমধ্যে ৭ আগস্ট হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য রেডজোন তৈরি করা হয়। সেপ্টেম্বর মাসে এখানে চালু হয় উন্নতমানের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ১২৮ স্লাইসের সিটিস্ক্যান মেশিন। এই মেশিনে রোগীর সিটি এনজিও গ্রামের মাধ্যমে হার্ট ও অন্যান্য অঙ্গ-প্রতঙ্গের রক্তনালীর রক্ত প্রবাহের দৃশ্য এবং রক্তনালীর সংকোচন খুঁজে পাওয়া সম্ভব। এছাড়াও ছিলো নানা সাফল্য। সুখের পাশাপাশি ছিলো কান্না। করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের রেডিওলজিস্ট বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সাজ্জাদ কামাল মারা যান। ১৮ অক্টোবর থেকে তিনি অসুস্থ ছিলেন। ২৯ নভেম্বর গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়েছিলো। তার মৃত্যুতে শোকে কাতর ছিলেন হাসপাতালের চিকিৎসক সেবিকাসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় ও সিভিল সার্জন ড. শেখ আবু শাহীন। বর্তমানে তারা সুস্থ জীবনযাপন করছেন। জানা গেছে, বিদায়ী বছরে যশোরে ২৬ টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে রেকর্ড সৃষ্টি করেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, সেবিকা, প্যাথলজি টেকনিশিয়ান, লাইসেন্স না থাকাসহ নানা অনিয়মের কারণে প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়।
কলমকণ্ঠ/আইআর

সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর
' অনুমতি ব্যতিত কপিরাইট দণ্ডনীয় অপরাধ'
Theme Customized By kalomkantho.net