1. admin@kalomkantho.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আটঘরিয়ায় ইউপি নির্বাচনে নৌকাপ্রত্যাশী প্রবীণ রাজনীতিবিদ মহসিন মোল্লা ঝিকরগাছা উপজেলায় নৌকা পেল যারা শেখ রাসেলের জন্মদিনে ঢাকা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের নানা কর্মসূচি ঝিকরগাছায় ৭৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু ঝিকরগাছা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম রেজা সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ঝিকরগাছার গরিবের ডাক্তার হাবিবুরের মৃত্যু, সাবেক এমপি মনিরের শোক ঝিকরগাছা থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত ঝিকরগাছায় আ. লীগ নেতার মৃত্যু, স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহ্বায়ক কালামের শোক যশোরে চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা গ্রেফতার যুবলীগ থেকে ব্যারিস্টার সুমনকে অব্যাহতি

‘কেউ দেখেননি’

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৮৩ ভিউ টাইম

এম আর মাসুদ :

চার পাশ ছেড়াছুটকো পুরনো পলিথিন দিয়ে মুড়ানো। টালির ছাউনি। ছোট একটি খুপড়ি। এর ভেতরে একটি ছোট চৌকি। তার পাশে হাড়িপাতিলসহ কিছু আসবাবপত্র। খুপড়ির ভেতরে সোজা হয়ে দাঁড়ানো জায়না। সোজা হয়ে দাঁড়ানো না গেলেও দুই শিশু সন্তান, স্ত্রীসহ এ খুপড়িতে বসবাস করছেন ইসরাফিল আলী খাঁ। রোদ, বৃষ্টি, ঝড় ও শীতে এ খুপড়িতে তাঁদের পার হয়েছে গত আট মাস। অসহায় এ অবস্থা এতদিনেও কেউ দেখেননি! যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া ইউনিয়নের দিগদানা গ্রামের নগরপাড়ার আব্দুল কুদ্দুস খাঁর ছেলে ইসরাফিল আলী খাঁর বাড়ি গিয়ে দেখা গেছে এ চিত্র।

গত ২১ মে আম্পান ঝড়ে তাঁর বসতঘর নিশ্চিহ্ন হলে মাথা গোঁজার জন্য এ খুপড়ি তৈরি করেন। আর বসবাসযোগ্য ঘর বানানো তাঁর পক্ষে সম্ভাব হয়নি। তবে এদূরাস্থা কারো নজরেও আসেনি। ইসরাফিল আলী খাঁর স্ত্রী পাপিয়া খাতুন জানান, সংসারে তাঁদের দুইটি সন্তান রয়েছে। পাঁচ মাস বয়সের ছোট ছেলেটির জন্য ৫ দিনে সাড়ে পাঁচশ টাকার দুধ লাগে। স্বামী বাইসাইকেল মিস্ত্রির কাজ করে ছেলের দুধের টাকা সব সময় জোগাড় হয় না, তাই এখন সুজি খাওয়ায়।

ইসরাফিল আলী খাঁ জানান, পাঁচ ভাইবোনের পৈত্রিক সম্পদ ৯ শতক জমি। তা থেকে পাওয়া আড়াই শতক জমি হলো সম্বল। এর উপর ছিল মাটির ঘর। যা আম্ফান ঝড়ে নিশ্চিন্ন হয়ে যায়। এরপর একটি ঘর ও সন্তানের বিষয় মার্তৃত্ব ভাতার কার্ডের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে একাধিকবার গিয়েছি। তিনি এসব দেয়ার আশ্বাস দিলেও শেষ পর্যন্ত কিছুই দেয়নি৷

গ্রামের ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সেলিম রেজা জানান, তিনি এসব পাওয়ার যোগ্য, তবে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে না দিলে আমার কিছুই করার নেই। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নিছার আলী জানান, বিষয়টি আমি দেখব। ওদেরকে আবার আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরাফাত রহমান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। তাছাড়া, আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দেয়া হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ এ বিষয় যদি কোন ব্যবস্থা না নেন তাহলে ব্যবস্থা করব।

কলমকণ্ঠ/আইআর

সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর
' অনুমতি ব্যতিত কপিরাইট দণ্ডনীয় অপরাধ'
Theme Customized By kalomkantho.net